Boubazar
featured post শহর ও শহরতলি সূচনা

শহরে একের পর এক বাড়ি ভেঙে পড়ার ঘটনা, আতঙ্কিত কলকাতাবাসী

Focal Point:

  • Some House Is Cracked In Boubazar Area Due To Metro Construction

কলকাতার বৌবাজার (Boubazar) এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়ায় শনিবার সন্ধ্যাবেলা। হঠাতই ফাটল ধরতে শুরু করে একের পর এক বাড়িতে। দুর্গা পিতুরি লেন ও সেকরাপাড়া লেনের সেই বাড়িগুলি ভেঙে পড়তে শুরু করে ঐদিন গভীর রাতে। মনে করা হচ্ছে ইস্ট ওয়েস্ট মেট্রোর কাজের জেরেই এই ঘটনা। মোট ১৮টা বাড়িতে এই বিপর্যয় ঘটেছে। এখনও অবধি ২৮৪ জনকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। ৪টি বাড়ি একেবারে ধূলিস্যাৎ। কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম জানান,

“একটি স্পেশ্যাল হেল্পলাইন চালু করা হয়েছে। যার নম্বর, ৯৪৩২৬১০৪৭২। কাল এই নিয়ে সব পক্ষকে ডেকেছেন মুখ্যমন্ত্রী”।

ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন ঐ এলাকার বাসিন্দারা। তাদের বক্তব্য সঠিকভাবে সবকিছু পরীক্ষা না করে কিভাবে মাটির নীচে কাজ করার ঝুঁকি নিল মেট্রো? যদিও তাদের গাফিলতির অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন মেট্রোরেল কর্পোরেশন লিমিটেডের এম.ডি মানস সরকার। সমস্ত পরীক্ষানিরীক্ষার পরই কাজ শুরু হয়েছে এবং তাদের ইতিহাসে এরকম ঘটনা বিরল, এমনটাই দাবী তার।
ম্যানেজিং ডিরেক্টর বলেন,

‘”সাধারণত ভূগর্ভে বোরিংয়ের কাজ করার সময় জল উঠতে থাকে। সিমেন্ট ও রাসায়নিক দিয়ে তা রুখে দেওয়া হয়”। “কিন্তু শনিবার দেখা যায়, কোনও ভাবেই সেই জল বন্ধ করা যাচ্ছে না। বরং হুহু করে আরও জল ঢুকতে থাকে সুড়ঙ্গে। তার জেরেই এই বিপত্তি”।

রবিবার রাতেও জলস্রোত ঠেকানো যায়নি। মেট্রো-কর্তৃপক্ষের আশঙ্কা, জল রুখতে না-পারলে আরও বহু বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তাই এখন তাঁদের মূল লক্ষ্য, জল বন্ধ করা। ঘটনার পরেই মুখ্যমন্ত্রীর সাথে বৈঠকে বসেন মেয়র। তারপর ঘটনাস্থলে যান তিনি। গোটা এলাকা খতিয়ে দেখেন। পরবর্তীতে তিনি মেট্রো ও পুলিশ কর্তাদের সাথে আলোচনা করেন। মেয়র ফিরহাদ হাকিম জানিয়েছে,

“যাদের সরানো হয়েছে, আপাতত চার-পাঁচ দিন তাঁদের হোটেলে রাখা হবে। এর মধ্যে কেএমআরসিএল-এর বিশেষজ্ঞেরা ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িগুলি পরীক্ষা করবেন”। “যদি দেখা যায়, বাড়িগুলি রাখা যাবে, তা হলে মেট্রো-কর্তৃপক্ষ সেগুলি সারিয়ে বা পুনর্নির্মাণ করে দেবে”। “বাড়ি সারানো বা পুনর্নির্মাণ পর্বে সংশ্লিষ্ট বাসিন্দাদের হোটেল থেকে সরিয়ে ফ্ল্যাটে রাখার বন্দোবস্ত করা হবে”। “আর বিশেষজ্ঞেরা যদি মনে করেন যে, বাড়িগুলি রাখা নিরাপদ নয়, তা হলে সেখানকার বাসিন্দাদের জন্য অন্যত্র পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করবে রাজ্য সরকার”। “তার জন্য জায়গা বরাদ্দ করবে পুরসভা”।

ঐ এলাকার সমস্ত বাসিন্দারাই এখন প্রবল আতঙ্কিত। কোনো এলাকায় সামান্য কম্পন অনুভূত হলেই সেখানকার লোকদের অন্যত্র সরিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

লাইক করুণ আমাদের ফেসবুক পেজ Nabadin.com 

ফলো করুণ আমাদের টুইটারে Nabadin24News

সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল Nabadin News

সাম্প্রতিক শিরোনাম:

অনুসরণঃ

#Kolkata #Kolkata Metro

পাঠকের প্রতিক্রিয়া একান্ত কাম্য । নিচে কমেন্ট বক্সে জানান আপনার মতামত