১৩ বছর ধরে ধর্ষনের স্বীকার, অবশেষে থানায় গিয়ে অভিযোগ জানালেন নির্যাতিতা

নন্দিনী দাস:- ২০২০ সালে দাঁড়িয়ে সংবাদপত্র খুললে প্রতিদিন নজরে আসছে নারী নির্যাতনের মতো কোনো একটি নৃশংস ঘটনার। অতীতে মনে হত, এটা কেন হচ্ছে? আর এখন সংবাদপত্রে না দেখলে মনে হয়, কোনো একটা খবর সামনে এল না।যাঁরা নারী ও শিশু অধিকার নিয়ে এত এত চর্চা করেন, তাঁরা মনে হয় এটা জানেন না, যে এই চর্চার ভেতরে অন্য কোনো জায়গায় একটা ঘটনা ঘটে গেল। নৃশংসতার মাত্রা এতটাই বেড়েছে যে সুস্হ মস্তিষ্কসম্পন্ন কোনো ব্যক্তি সেই খবরটা পড়ে বোধকরি অসুস্হ বোধ করতে পারেন।

পরিবারের ব্যক্তির হাতে যাঁরা যৌনভাবে নির্যাতিত হয়েছেন বা হয়ে আসছেন, তাঁরা পরিবারের মানুষদের ভয়ে বা হয়তো সম্মান রক্ষার ভয়ে কথাগুলো বলে উঠতে পারেন না। কিন্তু, যাঁরা পারেন তাঁরাও যে সুবিচার যথাসময়ে পাবেন, সেটাও হলফ করে বলা যাবে না।
একটানা ১৩ বছর যৌন নির্যাতন সহ্য করে মেয়েটা ক্লান্ত শরীর ও মনে রিজেন্ট পার্ক থানায় অভিযোগ করতে যায়। আর অভিযুক্তরা? তাঁর বাড়ির জ্ঞাতিগত তিন দাদা।নিজের বাড়িতে এইভাবে অত্যাচারিত হওয়ার খবর বাড়ির লোকেরা এমন কি বাড়ির বাইরের লোকেরাও ঘুণাক্ষরেও জানতে পারেনি।শোনা যায়, মেয়েটির বাবা-মা বেরিয়ে যাওয়ার পরে বাড়িতে তিন দাদা সমেত মেয়েটি একা থাকত।

প্রথম দিকে মেয়েটিকে পর্ণোগ্রাফি, অশ্লীল ছবি এই সব দেখানো হত। ১১ বছর বয়সে এত কিছু বোঝা তাঁর পক্ষে সম্ভব ছিল না।তিনি দেখতে না চাইলে তাঁর ওপর অত্যাচার হত এমন কি ধরে মারধর করা হত। বারবার বলতে চাইলেও বলতে পারেননি কাউকে। শারীরিক মারধর ও মানসিক ভয়ে জর্জরিত মেয়েটির বর্তমান বয়স ২৪ বছর। তিনি রিজেন্ট পার্ক এলাকার পূর্ব পুঁটিয়ারি এলাকার বাসিন্দা। থানায় এসে অভিযোগ করার পর পুলিশ প্রমাণের ওপর ভিত্তি করে তদন্ত শুরু করেছে। যেসময়ে মেয়েটির ওপর অত্যাচার শুরু হয়, সেইসময় তাঁর দাদারাও কিশোর ছিল।নাবালিকা অবস্হা থেকে অত্যাচার শুরু হওয়ায় পকসো আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

খবরের সাথে থাকতে এখনই আমাদের ফেসবুক পেজ nabadin.com  লাইক করে সাথে থাকুন। সাথে ট্যুইটারে Nabadin24News  আমরা পৌঁছে যাব আপনার কাছে। আর এখন থেকে সব খবরের বিস্তারিত তথ্য থাকবে ইউটিউব ভিডিওতে। তাই আমাদের ইউটিউব চ্যানেল Nabadin News  সাবস্ক্রাইব করে সবসময় থাকুন খবরের সঙ্গে৷ আর আমরা আছি আপনার জন্য।

সাম্প্রতিক শিরোনাম:

অনুসরণঃ

#Kolkata

পাঠকের প্রতিক্রিয়া একান্ত কাম্য । নিচে কমেন্ট বক্সে জানান আপনার মতামত

 

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here