“বিবিধের মাঝে দেখ মিলন মহান”- স্বার্থকতা উঠে এল ‘হর ঘর তিরঙ্গা’ অনুষ্ঠানে

Har Ghar Tiranga

‘হর ঘর তিরঙ্গা’ অনুষ্ঠানে বিজেপি কর্মীবৃন্দ

“পশ্চিমে আজি খুলিয়াছে দ্বার,
সেথা হতে সবে আনে উপহার।
দিবে আর নিবে, মিলাবে মিলিবে, যাবে না ফিরে।
এই ভারতের মহামানবের সাগরতীরে”।।

আর মাত্র একদিনের প্রতীক্ষা।দেশজুড়ে পালিত হতে চলেছে স্বাধীনতার ৭৫ তম বর্ষপূর্তী।দেশ মেতে উঠেছে ‘আজাদি কা অমৃত মহোৎসব’এ।এই স্বাধীনতা স্মরনীয় করে রাখতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আহ্বান করেছেন “হর ঘর তিরঙ্গা”।সমগ্র ভারতের অন্যান্য অংশের সাথে পশ্চিমবঙ্গের সাধারন জনগন সাড়া দিয়েছেন এই আহ্বানে।সেই উপলক্ষ্যে আজ কলকাতা উত্তর শহরতলী জেলার অন্তর্গত বরানগর মন্ডল ২ এর ১১ নং ওয়ার্ডে পালিত হল “হর ঘর তিরঙ্গা” কর্মসূচী।ভারতীয় জনতা মহিলা মোর্চার পশ্চিমবঙ্গ শাখার রাজ্য প্রচার প্রমুখ ও বিগত পৌরভোটে ওয়ার্ডের বিজেপি প্রার্থী সমাপ্তি রায়ের ও ওয়ার্ডের বিজেপি কর্মীদের উদ্যোগে পালিত হল এই কর্মসূচী।উপস্থিত ছিলেন মন্ডল ২ এর সভাপতি সুরজিৎ দাস, সাধারন সম্পাদক সৌমেন দে, সহ সভাপতি বাসুদেব ঘোষ, মন্ডল যুব মোর্চা সভাপতি সুখেন সরকার, মন্ডল মহিলা মোর্চা সভানেত্রী রত্না ভৌমিক, মন্ডল ওবিসি মোর্চা সভাপতি কমল বেরা, মন্ডল হিসাব রক্ষক কৌশিক রায়, বিশ্বনাথ বিশ্বাস, পার্থ ধাড়া, রবিন প্রামাণিক সহ ওয়ার্ডের সকল স্তরের বিজেপি কর্মীগন।ওয়ার্ডের মানুষের সাথে এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জনসংযোগ সারেন সকলে।

Har Ghar Tiranga
কামান দা এর হাতে জাতীয় পতাকা তুলে দিচ্ছে বিজেপি কর্মীবৃন্দ


এই অনুষ্ঠান চলাকালীন ওয়ার্ডের একজন সংখ্যালঘু চা বিক্রেতা কামান দা নিজে ইচ্ছে প্রকাশ করে জাতীয় পতাকা বিজেপি কর্মী সমর্থকদের থেকে সংগ্রহ করেন।তিনি এও জানান কাল সকালেই সসম্মানে তিনি এই পতাকা উত্তোলন করবেন।যারা কিছু ক্ষুদ্র রাজনৈতিক স্বার্থে বিজেপি দল ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভাজনের গল্প ছড়িয়ে বেড়ান, দেশাত্মবোধে উদ্বুদ্ধ এই ভাইটি হয়তো তাদের কাছে একটি উপযুক্ত জবাব।স্বার্থক হোক স্বাধীনতা।তার সাথে স্বার্থক হোক সর্ব ধর্ম সমন্বয়ের এই বন্ধন।প্রকৃতভাবেই ভারত হয়ে উঠুক জগৎ সভায় শ্রেষ্ঠ।

Related Topics